Madan Kamdev Temple, Kamrup Assam । মদন কামদেব মন্দির।

VSarkar
0
Madan Kamdev Temple

মদন কামদেব মন্দির ও কামরূপ প্রাগজ্যোতিষপুর ইতিহাস। 

Kumar Mridul Narayan
Kumar MMridul Narayan


কামরূপের ইতিহাস বা কামরূপের নামকরণ বহুকাল প্রাচীন। প্রাগজ্যোতিষপুর এর সঙ্গে প্রাচীন দেশ কামরূপের উৎপত্তির সময়কাল নিয়ে ঐতিহাসিকদের মধ্যেও মতভেদ আছে।অনেক ঐতিহাসিক মনে করেন, প্রাগজ্যোতিষপুর নামটি কামরূপ এর চেয়ে অনেক প্রাচীন। আবার অনেক ঐতিহাসিক বিশ্বাস  করেন, প্রাগজ্যোতিষপুর ছিল কামরূপের রাজধানী শহর। সংস্কৃত কবি কালিদাস তার গ্রন্থে প্রাগজ্যোতিষপুরকে প্রাচীন বলে উল্লেখ করেছেন। আবার চাণক্য তার “অর্থশাস্ত্রে” কামরূপের উল্লেখ করেছেন। রামায়ণ, মহাভারত ও অন্যান্য প্রাচীন গ্রন্থে আমরা প্রাগজ্যোতিষপুরের উল্লেখ পাই। আবার পরবর্তীতে যোগিনীতন্ত্র, কালিকাপুরানে কামরূপের উল্লেখ পাওয়া যায়। তবে কামরূপ নামের সঙ্গে মদনকাম বা কামদেব, দেবী কামাক্ষার যে যোগসূত্র আছে এ বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। মদন কামদেব মন্দির (Madan Kamdev Temple, Charali, Kamrup, Assam) আসামের কামরূপ জেলার বৈহাটা চারালী বা চারিয়ালীর দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত। 

Kamdev Temple charali
Madan Kamdev Temple, Charali, Kamrup, Assam

মদন কামদেব মন্দির সমগ্র ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার মধ্যযুগীয় অন্যতম শ্রেষ্ঠ মন্দির। মন্দিরটি প্রেমের দেবতা কামদেবকে উৎসর্গ করে। মন্দিরের আংশিকভাবে ধ্বংসপ্রাপ্ত ভাস্কর্যগুলি কামদেব এবং তার স্ত্রী রতির প্রেমের কাহিনী চিত্রিত করে। শিলা-পাথরের বাঁকানো মূর্তিটি মধ্যপ্রদেশের খাজুরাহোর মূর্তিগুলির সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ। তাই একে আসামের খাজুরাহো মন্দির ও বলে। মদন কামদেবের ভাস্কর্যগুলি দেব ও দেবীর রোমান্টিক মেলামেশাকে বর্ননা করে।

মদন কামদেব মন্দির এর ইতিহাস 

মদন কামদেব মন্দিরের ইতিহাস অনেক প্রাচীন। পৌরাণিক কাহিনী বলে যে কাম বা মদন, মদন কাম প্রেমের দেবতা, শোকবিহল ভগবান শিবের ধ্যান ভাঙানোর পরিনামে শিবের ক্রোধে পুড়ে ছাই হয়েছিলেন মদনকাম। ভস্মিত স্বামীর বিরহে স্ত্রী রতির তপস্যায়  কামদেবের পুনর্জন্ম হয়েছিল এবং এই স্থানে স্ত্রী রতির সাথে তার মিলন হয়েছিল।

যেখানে কামদেব তার আসল রূপ ফিরে পেয়েছিলেন সেই স্থানটি ‘কামরূপ’ নামে পরিচিত হয়েছিল। এই কামরূপ কুচবিহারের প্রাচীন নাম। এই বিশ্বাস কুচবিহারবাসীর মনে আত্মস্থ হয়ে আছে‌। কুচবিহার তথা এই অঞ্চলের রাজবংশী সম্প্রদায়ের মানুষজন মদন কাম দেবতাকে শিব জ্ঞানে পূজা করেন এবং তার প্রতিক হিসেবে বাঁশদণ্ডকে শিবলিঙ্গ হিসেবে মানেন। এই বাঁশ খেলার প্রচলিত কিছু গানও আছে – 

“বাইশ খান ঢেঁকি আরও তেইশ খান কুলা‌,

টেকিয়া টেকিয়ে নেয় জটিয়া ভাঙ্গের গুড়া 

ভাটি হাতে আইল কুচুনি হাতোত পিতলের খাড়ু,

তায় সে বানাইতে পারে মদন কামের নাড়ু ।।”

Koch RRajbanshi Madan Kam Baansh Nritya

আসামের প্রত্নতত্ত্ববিদরা মনে করেন, মদন কামদেব মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ দশম ও দ্বাদশ শতাব্দীর। সেই সময় এই অঞ্চলের শাসক ছিলেন করেছিলেন কামরূপের  পাল রাজবংশের

ব্রাহ্মপাল(৯৮৫-১০০০ বঙ্গাব্দ )

রত্ন পাল(১০০০-১০৩০ বঙ্গাব্দ)

ইন্দ্র পাল(১০৩০- ১০৫৫ বঙ্গাব্দ)

গোপাল(১০৫৫-১০৭৫ বঙ্গাব্দ)

হর্ষপাল(১০৭৫-১০৯০ বঙ্গাব্দ)

ধর্মপাল(১০৯০-১১১৫ বঙ্গাব্দ)

জয়পাল(১১১৫-১১২৫ বঙ্গাব্দ)‌ রাজারা ।(Source:- Early history of Kamrup by Rai K.L. Barua Bahadur, B.L, page no-149).

 প্রত্নতাত্ত্বিকরা এটাও মনে করেন, মন্দির এলাকায় আরও অনেক ধ্বংসাবশেষ গুলি ২০টিরও বেশি শিব মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ বলে মনে করা হয়। বহু বছর ধরে জায়গাটি মানুষের অজানা ছিল। প্রাচীন মদন কামদেব মন্দির (Madan Kamdev Temple) প্রত্নতাত্ত্বিকদের বিশেষ আকর্ষণীয়। ১৯৭৭ সালে যখন মন্দিরের চারপাশের ঘন পাতাগুলি পরিষ্কার করা হয়েছিল, তখন কয়েক ডজন মন্দির এবং ভাস্কর্যের ধ্বংসাবশেষ পাওয়া যায়। ১৯৮১ সালে খনন কাজ প্রত্নতাত্ত্বিকদের দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল। সেখানে পাথর ও ইটের মন্দির তাদের নজরে পড়ে। এই মন্দিরগুলো ছিল ভগ্নদশায়। প্রত্নতাত্ত্বিকদের মতে, এই মন্দিরগুলির ধর্মীয় গুরুত্ব ছিল। এলাকায় একটি জলের ট্যাঙ্ক পাওয়া গেছে যা বাসস্থান বা আবাসিক এলাকার অস্তিত্বের ইঙ্গিত দেয়।

মদন কামদেব (Madan Kamdev) আসামের ঐতিহাসিক স্থানগুলির মধ্যে একটি। দেওয়ানগিরি টিলার চারপাশে মন্দিরটি ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। মন্দিরে সবুজ পাহাড় এবং প্রবাহিত নদী, গ্রিফিন, জলপরী, নৃত্যরত পরী, দেব-দেবী, দেয়াল, স্তম্ভ এবং প্রাণীদের নিয়ে একটি সুন্দর পটভূমি রয়েছে। ইট-পাথরের তৈরি মন্দির এবং মদন কামদেবের বিরল ভাস্কর্য রয়েছে।

ভারতীয় পুরাতত্ত্বিক বিভাগ ১৯৮৬ সালে মন্দিরটির সংরক্ষণের দায়িত্ব গ্রহণ করে। এখনো বর্তমান স্থানটি ASI-এর অধীনে আছে।

মদন কামদেব মন্দির আসামের একটি বিখ্যাত তীর্থস্থান এবং পর্যটন স্থান। এখানে প্রায়শই পর্যটকরা  পরিদর্শন করতে আসেন। মন্দিরে ভগবান শিব ও দেবী উমার মূর্তি রয়েছে।মন্দিরে নাগারা স্থাপত্য ব্যবহার করা হয়েছে যাতে একশিলা পাথরে খোদাই করা ছবি রয়েছে। নারী-পুরুষের ইরোটিক ছবি মন্দিরে ভাস্কর্য করা হয়েছে। এখানে একটি ছয় মাথাওয়ালা ভৈরব, চার অস্ত্রধারী শিব এবং ভয়ঙ্কর চেহারার অসুরের ভাস্কর্য রয়েছে। সেখানে দৈব নর্তকী অপ্সরার পাথরের মূর্তি রয়েছে যা অজন্তা ও ইলোরার কাঠামোর সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ। মন্দিরের স্থাপনাগুলো পর্যটকদের কাছে অত্যন্ত আগ্রহের বিষয়। মন্দিরের প্রধান দেবতা শিব। ভগবান শিবের উপাসনা করতে প্রচুর সংখ্যক পর্যটক এবং ভক্তরা ভিড় জমায়। ভাস্কর্য ছাড়াও মন্দিরের চারপাশে পাহাড় ও নদী রয়েছে। পর্যটকরাও এখানে পিকনিক উপভোগ করতে আসেন।

পুরাতত্ত্ব বিভাগের নিয়ন্ত্রণে মদন কামদেব একটি আকর্ষণীয় ওপেন-এয়ার মিউজিয়াম। অনেক জায়গায়, মন্দিরের ধ্বংসাবশেষগুলি সুন্দরভাবে একটি পাকা ওয়াল দিয়ে সাজানো হয়েছে যাতে দর্শনার্থীদের খোদাই এবং স্থাপত্যের বিবরণ অন্বেষণ এবং পরীক্ষা করতে সহায়তা করে। তবে বেশিরভাগ ধ্বংসাবশেষ পুরো এলাকা জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। এছাড়াও একটি যাদুঘর রয়েছে যা পাহাড়ের বিরল উন্মোচিত শিল্পকর্ম প্রদর্শন করে।এই মন্দিরের ধ্বংসপ্রাপ্ত সম্পর্কে অসমীয়া পুরাতত্ত্ব বিভাগের রিপোর্টে উল্লেখ করা আছে ভয়াল ভূমিকম্পে এই মন্দিরের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল।

মদন কামদেব মন্দিরকে নির্মাণ করেছিলেন এবং কেন এটি নির্মাণ করা হয়েছিল তা ইতিহাসবিদের মধ্যে মতভেদ থাকলেও  উত্তর-পূর্ব ভারতের অন্যতম রহস্যের অনুভূতি পেতে অবশ্যই এই জায়গাটি  পরিদর্শন করতে পারেন।

@English Version..

Madan Kamdev Temple and history of Kamrup Pragjyotishpur. 

The history of Kamrup or the naming of Kamrup is very ancient. There is a difference of opinion among historians about the origin period of Pragjyotishpur and the ancient country of Kamrup. Many historians think that the name Pragjyotishpur is much older than Kamrup. Again, many historians believe that Pragjyotishpur was the capital city of Kamrup. Sanskrit poet Kalidas mentioned Pragjyotishpur as ancient in his book. Again Chanakya mentions Kamarupa in his “Arthashastra”. In Ramayana, Mahabharata and other ancient texts we find mention of Pragjyotishpur. Later, there is mentioned of Kamarupa in Yoginitantra, Kalikapurana. However, there is no doubt that the name Kamarupa is associated with Madanakam or Kamdev, Goddess Kamaksha.

Madan Kamdev Temple is located in south-east of Baihata Charali or Chariali in Kamrup district of Assam. It is one of the finest medieval temples in the entire Brahmaputra valley. The temple is dedicated to Kamdev, the god of love. The partially destroyed sculptures in the temple depict the love story of Kamdev and his wife Rati. The rock-curved idol resembles the idols of Khajuraho in Madhya PradeshHence it is also called Khajuraho Temple of Assam. Madan Kamdev’s sculptures depict the romantic union of a god and a goddess.

History of Madan Kamdev temple

The history of Madan Kamdev temple is very old. Mythology says that Kama or Madan, Madan Kama is the god of love, Madankam was burnt to ashes by Shiva’s anger as a result of breaking the meditation of Shokavihal Lord Shiva. Kamdev was reborn in the penance of his wife Rati in Birha of Bhasmit Swami and was reunited with his wife Rati at this place.

The place where Kamdev regained his original form came to be known as ‘Kamarup’. This Kamrup is the ancient name of Coochbehar. This belief is imbibed in the mind of Coochbeharbashis. The people of Cooch Behar i.e. the Rajbanshi community of this region worship the god Madan Kama in the knowledge of Shiva and consider the bamboo stick as Shivalinga as his symbol. There are also some popular songs of playing this bamboo – 

“Baishkhan dheki aro teishkhan kula, tekia tekie nei jotia bhanger gura, bhaati haate ailo kuchuni haatot pitoler kharu, tai de banaite pare madan kamer naru।।” 

Assam archaeologists believe that the ruins of the Madan Kamdev temple date back to the 10th and 12th centuries. At that time the Pala dynasty of Kamarupa ruled the region

Brahmapala (985-1000 BC)

Ratna Pal (1000-1030 BC)

Indra Pal (1030-1055 CE)

Gopal (1055-1075 Bengal)

Harshpal (1075-1090)

Dharmapala (1090-1115)

Jaipal (1115-1125 Bangabd) kings. (Source:-Early history of Kamrup by Rai K.L. Barua Bahadur, B.L, page no-149).

Archaeologists also believe that many other ruins in the temple area are believed to be the ruins of more than 20 Shiva temples. The place was unknown to people for many years. The ancient Madan Kamdev temple is of particular interest to archaeologists when the thick foliage surrounding the temple was cleared in 1977, dozens of temple and sculptural remains were found. In 1981, excavations were conducted by archaeologists. There they noticed stone and brick temples. These temples were in ruins. According to archaeologists, these temples had religious importance. A water tank was found in the area indicating the existence of a residence or residential area.

Madan Kamdev is one of the historical places of Assam. The temple is scattered around the Dewangiri hills. The temple has a beautiful backdrop of green hills and flowing river, griffins, mermaids, dancing fairies, gods and goddesses, walls, pillars and animals. There are brick-stone temples and rare sculptures of Madan Kamdev.

The Archaeological Survey of India took over the conservation of the temple in 1986. Still the present place is under ASI.

Madan Kamdev Temple is a famous pilgrimage and tourist spot in Assam. Tourists often visit here. The temple houses the idols of Lord Shiva and Goddess Uma. The temple uses Nagara architecture with images carved into monoliths. Erotic images of men and women are sculpted in the temple. There are sculptures of a six-headed Bhairava, four-armed Shiva and fierce-looking Asuras. There are stone statues of divine dancing Apsaras that resemble structures at Ajanta and Ellora. The temple structures are of great interest to the tourists. The presiding deity of the temple is Shiva. A large number of tourists and devotees throng to worship Lord Shiva. Apart from the sculptures, the temple is surrounded by hills and rivers. Tourists also come here to enjoy picnics.

Madan Kamdev is an interesting open-air museum under the control of the Department of Archaeology. In many places, the temple ruins are beautifully decorated with a paved wall to help visitors explore and examine the carvings and architectural details. But most of the ruins are scattered all over the area. There is also a museum which exhibits rare artefacts discovered on the hill. The report of the Assamese Archeology Department on the destruction of this temple mentions that the temple was badly damaged in the Great Earthquake.

Madan built the Kamdev temple and though historians differ as to why it was built, one must visit this place to get a sense of one of the mysteries of Northeast India.

Post a Comment

0Comments

Post a Comment (0)